ই-পেপার

আইনজীবিদের আদালত বর্জনের ২০ মিনিট পর স্বাভাবিক

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১

বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক এক সিনিয়র আইনজীবীর সাথে দুর্ব্যবহার করায় আদালত বর্জন করেছেন ওই আদালতের আইনজীবীরা। বিচারক সুলভ আচরণ না করার অভিযোগ জানিয়ে এই আদালত বর্জন করে আইনজীবীরা। তবে ২০ মিনিট পরে আবার স্বাভাবিক হয় ওই আদালতের কার্যক্রম। সোমবার বেলা ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

বেশ কয়েকজন আইনজীবী জানান, আইনজীবী মজিবুর রহমান দুলাল তার মক্কেলের মামলা নিয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ওঠেন। এসময় আদালতে অনেক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। তবে হাই কোর্টের নিয়ম অনুযায়ী করোনাকালীন আদালত চলাকালীন সময় ৬ জন আইনজীবী থাকতে পারবেন। এই কারণে বিচারক আবু শামীম আজাদ সিনিয়র আইনজীবী মজিবুর রহমান দুলালকে আদালত থেকে বের হয়ে যেতে বলেন এবং তার সাথে দুর্ব্যবহার করেন। এর পরেই ওই আদালতের সকল আইনজীবীরা আদালত বর্জন করেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর ফয়েজুল হক ফয়েজ বলেন, হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্ধারিত সংখ্যার বেশি আইনজীবী আদালত কক্ষে ছিলো। অতিরিক্ত আইনজীবি থাকায় বিচারক এবং আইনজীবীরা বাহিরে চলে গিয়েছিলো। এটি বড় কোন ঘটনা নয়। ২০ মিনিট পর আদালত কার্যক্রম স্বাভাবিক হয়।

বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতি সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, সকালে আদালত চলাকালে আমাদের আইনজীবী মজিবুর রহমান দুলালের সাথে রুঢ় আচরণ করেন বিচারক। প্রতিবাদ স্বরুপ তাৎক্ষনিক কক্ষে থাকা আইনজীবীরা সবাই আদালত বর্জন করেন। সভা করে এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন