বিয়ের কনেকে ছাত্রলীগ নেতার অপহরণচেষ্টা: বাবার মামলা, মেয়ের প্রতিবাদ!

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:৫৯

পিরোজপুর প্রতিবেদক

পিরোজপুরে বিয়ের আসর থেকে কনে ফারহানা আইভিকে (২২) অপহরণচেষ্টার অভিযোগে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনিরুজ্জামান অনিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। অনিকসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে শনিবার মধ্য রাতে মামলা দায়ের করেন কনের বাবা দেলোয়ার হোসেন। তবে অনিকের বিরুদ্ধে অপহরণচেষ্টা মামলার প্রতিবাদ করেছেন কনে ফারহানা আইভি নিজেই।

রবিবার সকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের আইডিতে লিখে প্রতিবাদ দিয়েছেন ফারাহানা। এরপর থেকে ফেসবুকে প্রতিবাদের ঝড় বইছে। এর আগে শনিবার দিনগত রাত ১টায় সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ফারাহানার বাবা পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন। ফারহানা স্থানীয় সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজের ইংরেজি স্নাতোকত্তর বিভাগের ছাত্রী।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে পৌর শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেনের শিক্ষা অফিস সড়কের বাড়িতে তার কলেজ পড়ুয়া কন্যা ফারহানা আইভির বিয়ের আয়োজন করা হয়। তখন সেখানে ইন্দুরকানী উপজেলার বরপক্ষ তাদের আত্মীয়-স্বজন নিয়ে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনিরুজ্জামান অনিকের নেতৃত্বে ২০-২৫ জনের একটি দল ওই কনের ঘরে ঢুকে বর পক্ষের সামনেই কনে কলেজছাত্রীকে অপহরণের চেষ্ট করেন। এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে থাকা পিস্তল বের করে উপস্থিতদের ভয় দেখানো হয়। তখন কনে পক্ষের আত্মীয়-স্বজন বাধা দিলে ছাত্রলীগ নেতা অনিরুজ্জামান অনিক তাদের হুমকি দিয়ে চলে যান।

অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনিরুজ্জামান অনিক জানান, ওই কলেজ ছাত্রীর সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতা আলিমের দীর্ঘ দিনের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বিয়ের দিন পাত্র পক্ষ উপস্থিত হলে ছাত্রীর এসএমএস পাই। সে তাকে বাঁচানোর জন্য অনুরোধ করে। ওই ছাত্রীর মা আমার দুঃসম্পর্কের দাদী।

আমাদের বাসায় তার নিয়মিত যাতায়াত। যে কারণে আমি উপস্থিত হয়ে শুধু জানিয়ে আসছি এই বিয়েটা দিলে মেয়েটা সুখি হবে না। বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক হয়রানি এমনকি মামলা হতে পারে এমনটি বুঝতেই পারিনি। ছাত্রীর প্রেমিক ছাত্রলীগ নেতা আলিম আমার পক্ষের লোক হওয়ায় প্রতিপক্ষরা আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করতে এ মিথ্যা মামলা দিয়েছে।

এদিকে থানায় মামলার পর রবিবার সকালে ফারহানা আইভি তার ফেসবুকে সবার উদ্দেশ্যে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে লেখেন, ‘আমাকে জোরপূর্বক বাসা আটকে রাখা হয়েছে। এই মূহুর্তে আমি বিবাহ করতে রাজি না। আমার সাথে কেউ অপহরণ বা ধস্তাধস্তি করেনি। আলিমের (প্রেমিক) বন্ধু বান্ধবের নামে যে ষড়যন্ত্র বা বিবাহ এর কোনটাই আমি চাই না। এই মিথ্যা মানুষিক যন্ত্রনা থেকে আমি মুক্তি চাই। আল্লাহ তুমি আমাকে রহমত করো।’

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনিরুজ্জামান অনিকের বাবা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান ফুলু বলেন, মেয়ের বাবার সাথে ফোনে কথা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন উপর মহলের চাপে পরে মামলাটি করতে বাধ্য হয়েছেন। তার এ কথাগুলো আমি সেল ফোনে রেকর্ড করে রেখেছি।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম বাদল জানান, এ ঘটনায় ওই কলেজছাত্রীর বাবা থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ আমলে নিয়ে মধ্যরাতে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।