নথুল্লাবাদে বিসিসি’র নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে চলছে প্ল্যান বহির্ভূত ভবন নির্মাই!

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:৩৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরীর ওয়ার্ডস্থ নথুল্লাবাদ এলাকায় প্ল্যান বহির্ভূতভাবে বহুতল ভবন নির্মাইের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে সিটি কর্পোরেশন থেকে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও তা মানছেন না তারা। এমনকি বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

এর পরেও গোপনে অবৈধভাবে দ্বিতল ভবন নির্মাণ কাজ এরই মধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। তারা প্ল্যান বহির্ভূতভাবে ভবন নির্মাণ বন্ধের বিষয়ে সিটি মেয়র’র হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, ‘নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল সংলগ্ন মূল সড়কের পাশে প্ল্যান বহির্ভূতভাবে ভবন নির্মাণ করছেন স্থানীয় সবুজ, শাহ আলম ও কালাম নামের তিন ভাই।

অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, ‘ওই এলাকায় ভবন নির্মাণের জন্য সিটি কর্পোরেশনে নকশা অনুমোদনের জন্য আবেদন করেন সংশ্লিষ্টরা। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে স্থানীয়রা আপত্তি জানান। এর ফলে সিটি কর্পোরেশন থেকে তাদের প্ল্যান অনুমোদন স্থগিত রাখে।

কিন্তু পরবর্তীতে অনুমোদন ছাড়াই তিন ভাই অবৈধভাবে ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেন। এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়ে সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। তাছাড়া এ বিষয়ে আদালতে একটি মামলাও হয়েছে।

তবে দেশে চলমান মহামারি করোনাভাইরাসের মধ্যে সিটি কর্পোরেশনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে গোপনে ভবনের এক তলা নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করেন তিন ভাই। এমনকি সম্প্রতি তারা ভবনের দ্বিতীয় তলার কাজও সম্পন্ন করেছেন।

সরেজমিনে দেখাগেছে, ‘প্লান বহির্ভূতভাবে ভবন নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। সেখানে পাইলিংয়ের কাজ চলছে। মূল সড়কের পাশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং তার পেছনে গোপনে ভবন নির্মাণ কাজ চলায় বিষয়টি প্রথম দিকে কারোর নজরে আসেনি।

তবে সম্প্রতি বিষয়টি নজরে আসলে তারা পুনরায় এ বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনকে অবগত করেছেন। তবে সরেজমিনে দিয়ে প্ল্যান বহির্ভূতভাবে ভবন নির্মাণের বিষয়ে বক্তব্য জানার চেষ্টা করা হলেও অভিযুক্ত কাউকে সেখানে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

এ প্রসঙ্গে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্ল্যান সহকারী লোকমান হোসেন বলেন, ‘সবুজ নামের ব্যক্তি প্ল্যানের জন্য আবেদন করেছিলেন। তবে জমির মালিকানা নিয়ে তাদের পরিবার থেকেই আমাদের কাছে আপত্তি জানিয়েছে। এ কারণে প্ল্যান অনুমোদন স্থগিত রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আমরা হয়েছে। এটি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত প্ল্যান অনুমোদন হবে না।

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে নতুন আইন অনুযায়ী প্ল্যান পেতে হলে অবশ্যই বিভিন্ন প্রমাণাদী সাথে দিতে হবে। এর বাইরে কেউ প্ল্যান ছাড়া স্থাপনা নির্মাণ করলে তাকে আইনের আওতায় এনে জরিমানা করার বিধারণ রয়েছে। এ নিয়ে খুব শিঘ্রই সিটি কর্পোরেশন মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম শুরু করবে। তাছাড়া বিষয়টি আরআই শাখা’র দেখভালের কথা। তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে প্ল্যান ছাড়া ভবন নির্মাণ করা হলো সে বিষয়টি তারাই ভালো বলতে পারবে।