প্রশাসনের কঠোরতায় পাল্টে গেছে বরিশাল

বিএসএল ডেস্ক Thursday, March 26th, 2020 1:04 am

করোনার প্রভাবে পাল্টে গেছে বরিশালের চিত্র। বিভাগীয় শহর বরিশাল নগরীসহ জেলা-উপজেলার রাস্তাঘাট এখন প্রায় জনশূন্য। জনবহুল এলাকাগুলোতেও এখন শুনশান নিরবতা। মাঝে মধ্যে কিছু রিক্সা ও বাইকের দেখা মিললেও নেই গণজমায়েত।

সরকারি নির্দেশে স্থানীয় সিভিল এবং পুলিশ প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপের কারণে এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে বরিশালজুড়ে। আর এই বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছেন বরিশালবাসী।

এদিকে শুধু জনশুন্যতায় নয়, করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে নগরী জীবাণুমুক্ত করতে জীবাণুনাশক ছিটানোর কথা জানিয়েছেন বরিশালের সিভিল সার্জন ডা. মো. মনোয়ার হোসেন। তাছাড়া করোনা প্রতিরোধে সরকারের নির্দেশ পুরোপুরি মেনে চলার অনুরোধ জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

সরেজমিনে দেখা যায়, বুধবার (২৫ মার্চ) ভোর থেকে প্রায় ৭ লাখ লোকের বরিশাল নগরীর সড়কগুলো প্রায় ফাঁকা। রাস্তায় টহল দিচ্ছেন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। চলছে অল্প সংখ্যক রিক্সা ও অটোরিকশা। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। নদী বন্দরের পন্টুন একেবারে জনশূন্য। করোনা প্রতিরোধে সরকারের নির্দেশকে স্বাগত জানিয়েছেন নগরবাসী।

স্থানীয় একজন বলেন, সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছে এটা যুগোপযোগী। আরেকজন বলেন, ঢাকা থেকে অনেক লোকজন চলে আসছে। এই লকডাউন আরো আগে থেকে করা উচিৎ ছিলো। অপর একজন বলেন, মানুষ খুবই সচেতন। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের জন্য ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।

এদিকে নগরীতে জীবাণুনাশক স্প্রে করার কথা জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা: মনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে যানবাহন, রাস্তাঘাট জীবাণুমুক্ত করার জন্য ব্লিচিং পাউডার দিয়ে তৈরি দ্রবণ স্প্রে করা হচ্ছে।

অপরদিকে জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বলেন, ‘আমরা প্রয়োজনে আরো কঠোর অবস্থানে চলে যাবো। কোনোভাবেই মানুষ ঘর থেকে বের হবে না। সরকার আমাদের কাছে পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য বরাদ্দ দিয়ে রেখেছে। আমরা ত্রাণ কার্যক্রমও পরিচালনা করবা। টিসিবির মাধ্যমে, ত্রাণের মাধ্যমে খাদ্যপণ্য কিন্তু পৌঁছে দেয়া হবে।

জানাগেছে, জেলায় বুধবার পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৬৩৬ জন। আর শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা সন্দেহে ভর্তি আছেন পাঁচজন। তবে এ পর্যন্ত এই হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন ৭ জন। যাদের মধ্যে দু’জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন।