হাতে মেহেদী পড়তে যাওয়া স্কুল ছাত্রীকে হাত-পা বেঁধে গণধর্ষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক সোমবার, আগস্ট ১২, ২০১৯ ৩:৩০ অপরাহ্ণ

ভোলায় চাচির বাড়িতে মেহেদী পড়তে যাওয়া ১৩ বছর বয়সী ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক কিশোরী স্কুল ছাত্রীকে হাত-পা বেঁধে গণধর্ষণ করেছে দুই বখাটে রিক্সা চালক। মুমূর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল রোববার (১১ আগস্ট) দিবাগত রাতে সদর উপজেলার রচসামাইয়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

কিশোরীর গরু ব্যবসায়ী বাবা জানান,  ঈদ ঘুরে বেড়ানোর জন্য রাত ৮ টার দিকে পাশের বাড়িতে চাচির কাছে হাতে মেহেদী পড়তে যায় কিশোরী। পথিমধ্যে স্থানীয় বখাটে রিক্সা চালক মঞ্জুর আলম মহুরী ও আলামিন কিশোরীকে বাড়ির পার্শ্ববর্তী কাচারি ঘরে ধরে নিয়ে হাত-পা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।

এদিকে শিশুর মা তাকে আনতে যাবার সময় কাচারি ঘরের মেয়ের আর্তনাত শুনে ছুটে যায়। সেখান থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাত ১০টার দিকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ভোলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. তৈয়বুর রহমান বলেন, শিশুটিকে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় হাসপাতাল আনা হয়েছে। পরে অস্ত্রপচার করে রক্তক্ষরণ বন্ধ করা হয়। তবে এখনো সে পুরোপুরিভাবে ঝুঁকিমুক্ত নয়। তাকে চিকিৎসকরা ফলোআপে রেখেছেন।

ভোলা সদর থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মো. ছগির মিয়া বলেন, ঘটনার পর পরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন সহ কিশোরীর খোঁজ খবর নেয়া হয়েছে। তাছাড়া আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যহত রয়েছে। এর পাশাপাশি ধর্ষনের ঘটনায় কিশোরীর মা একটি মামলা দায়ের করেন।