মশা মশা কামড় দিলে হয় রে কিযে দশা…….

নিজস্ব প্রতিবেদক শুক্রবার, আগস্ট ২, ২০১৯ ৫:৩৬ অপরাহ্ণ

রম্য রচনা:

অনুজ রুবেলের তাগিদায় অনেক দিন বাদে লিখতে বসা। বিষয়টা মাথায় নিতে পারছিনা। ছেলেধরা, কল্লাকাটা কতো বিষয় মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাইলেও হঠাৎ কানের কাছে ভনভন করার মতো একটা মশা মাথার মধ্যে ভনভন করছিল। ভাবলাম মশক অর্থাৎ মশা নিয়াই ল্যাখা যাইতে পারে। মশা বাবাজি এই লেখার কোন অংশে ভুল হইলে যেন রাগ না করেন তার জন্য শুরুতেই দোষ স্বীকার করে নিচ্ছি।

হাতি, ঘোড়া গেল তল মশা বলে কতো জল এই প্রবাদ বাক্যটিতে মশাকে তাচ্ছিল্যভাবে দেখা হইলেও মশা যে হেলাফেলার জিনিস না তা ইতোমধ্যে প্রমানিত হইয়াছে। মশা মারতে আমরা কামান দাগাসহ ব্যাপক তৎপরতা চালাইয়াও কোন কিছুতে কামের কাম কিছু করতে পারছিনা। ছোট্ট প্রানি মশা আজ আমাদের জীবন লইয়া টানাটানি শুরু কইরা দিছে।

আতংকে আমরা করনীয়ও ঠিক করতে পারছিনা। আগে ডেঙ্গুবাহী এডিস মশা ঢাকাতে প্রভাব বিস্তার করলেও এখন তা সারা দেশে ছড়াইয়া পড়িয়াছে। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে। পত্রিকা পড়ে জানা গেলো বরিশালে এডিস মশার সন্ধ্যান পাওয়া গেছে। বিষয়টি নিয়ে আমাদের নীতি নির্ধারকদের ভেবে দেখা দরকার। সবকিছুকে তাচ্ছিল্য করে দেখা যে ঠিক না তা ছোট্ট প্রানি মশা প্রমান করিয়া দিয়াছে। আজ মশা লইয়া শুধু আলোচনাই না সর্বত্র ভীতির সৃষ্টি হইয়াছে।

কল্লাকাটা গুজব শেষ না হইতে ডেঙ্গু আমাদের জন্য বড় পীড়া হয়ে দেখা দিয়াছে। আমাদের উচিত হবে ছোট্ট প্রানঘাতি এডিস মশা নিধন নিয়া বড় বড় কথা না কইয়া এই মশা নিধনের ব্যাপারে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করা। মনে রাখতে হইবে এডিস মশা এখন আর রাজধানীতে বসে নাই। তারা বাস লঞ্চে চেপে কিন্তু বরিশালসহ সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে।

এখন আর সভা সেমিনার আর শোভাযাত্রা করে মশক নিধন করা যাইবেনা। মনে রাখতে হবে এডিস মশা কারো সাথে কিন্তু পক্ষপাতিত্ব করবেনা। তার যারে ভাল লাগবে তারেই কামড় বসাইয়া দিবে। মশাটি ছোট হইলেও ওর নজর কিন্তু উপর নীচ সর্বত্র। কেউ যদি মনে করিয়া থাকেন আমার কাছে মশা মারার কামান আছে আমার কিছু হইবেনা সেটা ভাবা কিন্তু ভুল হইবে।

মনে রাখতে হইবে বিপদ বলে কয়ে আসেনা আবার সকল নিরাপত্তা ভেদ করে কিন্তু যম ঠিক সময়ে তার লক্ষে পৌছে যায়। মাঝে মাঝে ওই গানডা শোনার অনুরোধ করি। ওই যে ওই গানডা, “আসবার কালে আসলাম একা যাইবার কালে যামু একা মাঝে মাঝে মনরে বলি চক্ষু মেইলা কি দেখলা। মন বলে দুনিয়াদারি রকমারি এক খেল, পৃথিবীটা মানুষেরই দুইদিনেরই একজেল” থাক এই গান মনে করতে গিয়া নায়ক মান্নারে মনে পইড়া যাইবো। তার চাইতে এই গানডা গাই আর অনুধাবন করি-মশা মশা পিপড়ায় বান্দে বাসা, কামড় দিলে হয় যে কিযে দশা………

 

লেখক

বেলায়েত বাবলু

সাবেক সাধারণ সম্পাদক

বরিশাল সাংবাদিক ইউনিয়ন