হিজলায় যুবককে মল-মূত্র খাওয়ানোর ঘটনায় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক মঙ্গলবার, অক্টোবর ৮, ২০১৯

বরিশালের হিজলায় তেল ব্যবসায়ীকে হাত-পা ভেধে টয়লেটের মলমূত্র খাওয়ানোর ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার (০৮ অক্টোবর) নির্যাতিত আজমল বেপারীর বাবা মহিউদ্দিন বেপারী বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

ওই মামলায় আটককৃত ঘটনার মুল হোতা মাহাবুব সিকদার, তার সহযোগী স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা শরীফ মাতুব্বরের ছেলে আব্দুর রশিদ মাতুব্বর ও কবিরসহ কয়েকজনের নাম এবং আরো বেশ কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বুধবার (০৮ অক্টোবর) এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছে বরিশাল জেলা পুলিশ। সকালে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে ঘটনা এবং গ্রেফতার সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাইমুল ইসলাম।

তিনি জানান, নির্যাতিত ওই যুবকের খোঁজ পাওয়া গেছে। তিনি ঘটনার পর পরই তাবলিগ জামায়াতে অংশ নিতে কিশোরগঞ্জ রয়েছে। তাকে বরিশালে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। আজমের অনুপস্থিতির কারনে তার বাবাকে মামলার বাদী করা হয়েছে।

মামলার বরাত দিয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা আরো জানান, ‘বাদী তার ছেলে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে এমন নির্যাতন করেছে বলে অভিযোগ করেছে। মুলত স্থানীয় জহির খানের সাথে আজম বেপারীর বাবার বিরোধ রয়েছে। সেই বিরোধকে কেন্দ্র করে আজমের উপর এই নির্যাতন করা হয় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে হিজলার হরিনাথপুর তালতলা জামে মসজিদ রোড নামক স্থানে টুমচরের বাসিন্দা ও তেল ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন বেপারীর ছেলে আজম বেপারী (২৫) কে হাত-পা বেঁধে নির্মমভাবে নির্যাতনের পরে মুখে মলমুত্র ঢেলে দেয় প্রভাবশালীরা। যে ঘটনার ধারনকৃত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এ নিয়ে বিভিন্ন জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিএসএল নিউজে সংবাদ প্রকাশের নড়েচড়ে বসে জেলা ও হিজলা উপজেলা প্রশাসন। অভিযুক্তদের গ্রেফতারে সোমবার সকাল থেকেই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুল হোসেনের নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযানে ঘটনার মুল হোতাসহ তিনজনকে আটক করা হয়।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ‘আজম বেপারীকে হাত-পা বেধে হেরিংবনের রস্তার ওপর সুয়িয়ে রাখা হয়েছে। তার চার দিক ঘিরে দাড়িয়ে আছে ৭-৮ জন লোক। এর মধ্যে একজন আজমের বুকের ওপর পা দিয়ে দাড়িয়ে আছে। এছাড়া অপর একজন লোক আজমের পা এবং একজন লোক তার মাথা মাটির সাথে চেপে ধরে আছে।

একটু পরেই বুকের ওপর পা দিয়ে দাড়িয়ে থাকা ব্যক্তি বিশেষ পাত্রে মল-মুত্র নিয়ে তা জোর করে আজমের মুখে ঢালার চেষ্টা করছে। তখন আজম অনেক অনুনয় বিনয় এবং ধস্তা ধস্তি করেও তাদের থেকে রক্ষা পায়নি। এসময় পাশে দাড়িয়ে কিছু লোক ওই ঘটনা উপভোগ করলেও কেউ প্রতিরোধে এগিয়ে আসেনি। আর পুরো ঘটনাটি পাশ থেকে দাড়িয়ে কেউ একজন মোবাইল ফোনে ভিডিও করে।