বরগুনা-পটুয়াখালী অঞ্চল মাদকের নিরাপদ রুট– রইছ উদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৯

পটুয়াখালীঃ পটুয়াখালীতে কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করেছেন র‌্যাব-৮ পটুয়াখালী ক্যাম্পের নব যোগদানকৃত অধিনায়ক মো. রইছ উদ্দীন।

সকাল ১১টায় পটুয়াখালী র‌্যাব ক্যাম্পের দরবার হলে আয়োজিত মতবিনিয়ম সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পটুয়াখালী প্রেসক্লাবের আহবায়ক স্বপন ব্যানার্জী, টেলিভিশন জার্নালিষ্ট ফোরামের সাধারন সম্পাদক মুজাহিদ প্রিন্স, ইত্তেফাক প্রতিনিধি নির্মল রক্ষিত, চ্যানেল আই প্রতিনিধি এনায়েতুর রহমান, জাকির মাহমুদ সেলিম, কামরুজ্জামান হেলাল, গলাচিপা প্রেসক্লাবের সভাপতি খালিদ মিলটন, গলাচিপার রিপন বিশ্বাস, দশমিনার সাফায়েত মামুন, বেতাগী প্রেসক্লাব সভাপতি আবদুস সালাম সিদ্দিক প্রমুখ।

মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন, সাংবাদিকরা বলেন, পটুয়াখালী ও বরগুনা অঞ্চলে র‌্যাব-৮ অত্যন্ত সুনামের সাথে কাজ করছে। র‌্যাবের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের কোন অভিযোগ নেই। উপকূলীয় এলাকা হিসেবে এই অঞ্চলটি মাদকের নিরাপদ রুট হিসেবে কাজ করছে। বিশেষ করে কুয়াকাটা থেকে ঢাকায় নিরাপদে মাদকের রুট হিসেবে কুয়াকাটা-মহাসড়কটি ব্যবহার হয়ে আসছে।

পটুয়াখালী শহর ও শহরতলী এখন মাদকের নিরাপদ হাট। উঠতি কিশোররা এসব হাটে ক্রেতা এবং বিক্রেতা। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ভাবে অভিযান পরিচালনার দাবী জানান সাংবাদকিরা। এছাড়া জলদস্যু নিধনে র‌্যাবের চলমান কার্যক্রমের প্রসংসা করে সাংবাদিকরা ভেজালের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার জন্য দাবী জানান।

র‌্যাব-৮ পটুয়াখালী ক্যাম্পের নব যোগদানকতৃ অধিনায়ক মো.রইঠ উদ্দীন বলেন, এখন থেকে পটুয়াখালী র‌্যাব ক্যাম্প জাটকা, রেনু পোনা, কারেন্ট জাল বিষয়ে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করবে। এছাড়া মাদকের বিরুদ্ধে আরো বেশী বেশী অভিযান পরিচালনা করা হবে।

বিশেষ করে কুয়াকাটা সংলগ্ন সাগর ও নদী মোহনাগুলো এ অভিযানের আওতায় আসবে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান। এছাড়া সাগরে জলদস্যু নিধনের কার্যক্রম ঢাকা থেকে সরাসরি মনিটরিং করা হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন,জেলেরা যাতে ইলিশ শিকারে গিয়ে নিরাপদে ফিরে আসতে পারে সে বিষয়ে র‌্যাব সজাগ রয়েছে। আগামী দিনের কার্যক্রমে সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।