জাতির সূর্য সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের মাথার তাজ– এমপি শাহে আলম

রাহাদ সুমন, বানারীপাড়া শনিবার, অক্টোবর ৫, ২০১৯

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে বরিশালের বানারীপাড়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডারের দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদের সভাপতিত্বে এ সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

দুর্নীতি বিরোধী এ মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. শাহে আলম বলেন, ‘জাতির সূর্য সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের মাথার তাজ।বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চলমান দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে তাঁর পেশে থেকে উন্নত সমৃদ্ধ সোনারবাংলা বির্নিমাণে মুক্তিযোদ্ধাদের অগ্রণী ভূমিকা পালণ করতে হবে।

তিনি এসময় অতীতের কোন বিষয় নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি না করে যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে কেউ জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ করতে বলেন।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সহকারী কমান্ডার মীর সাইদুর রহমান শাহজাহানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বানারীপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম ফারুক।

বিশেষ আলোচক ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা, মুক্তিযুদ্ধকালীণ বেজ কমান্ডার বেনী লাল দাস গুপ্ত বেণু, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার তরুনেন্দ্র নারায়ণ ঘোষ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সুব্রত লাল কুন্ডু, উপজেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক ওয়াহেদুজ্জামান দুলাল ও বানারীপাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি রাহাদ সুমন। এছাড়াও বক্তৃতা করেন মুক্তিযোদ্ধা আ. লতিফ সরদার, শাহ আলম, জগন্নাথ, রফিকুল ইসলাম প্রমুখ

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুরুল হুদা, ইউপি চেয়ারম্যান আ. জলিল ঘরামী, খিজির সরদার, জিয়াউল হক মিন্টু, আ,মন্নান মৃধা, ডা.হরেন রায়, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

সভায় মুক্তিযোদ্ধারা দাবী করেন গত ২৫ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মতবিনিময় সভার রেজুলেশনে মহান মুক্তিযুদ্ধে বিএনপি দলীয় সাবেক হুইপ সৈয়দ শহীদুল হক জামালের ভূমিকা নিয়ে যে মন্তব্য লেখা হয়েছে তা তাদের বক্তব্য নয় বলে দাবী করে ওই রেজুলেশন তৈরীর জন্য মুক্তিযোদ্ধা হায়দার আলী কাজীকে বানারীপাড়ায় অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন।

এছাড়া তারা মুক্তিযুদ্ধের সময় যেসব মুক্তিযোদ্ধা বোরকা পড়ে ব্রাক্ষ্মনকাঠি গ্রাম সহ বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি ও লুটপাট করে মুক্তিযোদ্ধাদের কলঙ্কিত করেছেন তাদের তিরস্কার করেন।