চরিত্রহীনরা ক্ষমতায় থাকলে দেশ এক নম্বর হতে পারবে না— ফয়জুল করীম

নিজস্ব প্রতিবেদক সোমবার, অক্টোবর ৭, ২০১৯

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করিম বলেছেন, যারা চরিত্রহীন, নিজেদের চরিত্র বিক্রি করে দিয়েছে এরা যদি ক্ষমতায় থাকে তাহলে দেশ এক নম্বর হতে পারে না। আর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নিজে পরিবর্তনের ভিত্তিতে দেশকে পরিবর্তন করতে চায়। নিজে আদর্শবান হওয়ার ভিত্তিতে দেশকে আদর্শবান করতে চায়। কাজেই আমি চাই বাংলাদেশের সকল শান্তিকামি মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশকে শান্তিতে রাখার জন্য চেষ্ট করতে হবে।

সোমবার ৭ অক্টোবর বিকেলে ভোলা শহরের সরকারি স্কুল মাঠে ইসলামী আন্দোলন ভোলা জেলা শাখার আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয়ের ভিসিকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে মুফতি ফয়জুল করিম বলেন, রাবির ভিসি বাংলাদেশে বসে হিন্দুস্তান জিন্দাবাদ স্লোগান দিবে, এর পরও তার পদে অধিষ্ঠ থাকবে, গ্রেফতার হবে না সেটি মানা যায় না। আজকে বাংলাদেশের সকল টাকা বিদেশে পাচার হচ্ছে। বাংলাদেশের জনগনের জান মালের কোনো নিরাপত্তা নাই। তিন বছর থেকে শুরু করে ৮০ বছরের মহিলাদের ইজ্জত নিয়ে বাঁচার অধিকার নাই। আজকে মানুষের জান-মালের নিরাপত্তা থাকবে না, আর আপনারা গদি চালাবেন এরকম গদিতে আপনাদেরকে আমরা দেখতে চাই না।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ভারতকে কি কি দিয়েছ এবং ভারত থেকে বাংলাদেশ কি পেয়েছে তা এখন জনগন জানতে চায়। ভারত পদ্মা-তিস্তার পানি বাংলাদেশকে না দিলেও সরকার ফেনী নদীর পানি ভারতকে দিয়ে দিয়েছে। যেখানে গ্যাসের অভাবে দেশের বিভিন্ন কলকারখানা বন্ধ হচ্ছে সেখানে বাংলাদেশ থেকে ভারতে গ্যাস রপ্তানি করা হবে সরকার এমন আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। সরকার এরকম সিদ্ধান্ত নিতে পারে কিন্তু জাতি এটা মেনে নেবে না। বাংলাদেশের গ্যাস ভারতে রপ্তানি করা যাবে না। বাংলাদেশের কোন নৌ-বন্দর বাংলাদেশের স্বার্থের বাইরে কাউকে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না।

ইসলামী আন্দোলনের এ সিনিয়র নায়েবে আমির বলেন, দেশের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বুয়েট। যেখানে দেশের সবচেয়ে মেধাবি শিক্ষার্থীরা বুয়েটে ভর্তি হয়। সেই বুয়েটে শিবির সন্দেহে ছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। যদি সেই ছাত্র শিবির করেও থাকে, এর পরেও তাকে হত্যা করার অধিকার সংবিধান কাউকে দেয় নাই। এই ধরনের হত্যা জাতি মানতে পারে না।

ইসলামী আন্দোলন ভোলা জেলা (উত্তরের) সভাপতি সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক মুহাম্মদ জিএম রুহুল আমিন।

এ সময় আরো বক্তব্য, রাখেন ইসলামী আন্দোলন ভোলা সহ সভাপতি মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা তাজউদ্দিন ফারুকি, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আতাউর রহমান, ইসলামী আন্দোলন ভোলা সদর উপজেলা সভাপতি মুফতি আবুল হাসান কাশেমি, জেলা যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা তরিকুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি আবদুল মমিন, হাফেজ মাওলানা মোসলেহউদ্দিন প্রমূখ।